আত্মহত্যা করা আমার উচিত নয় কেন?



প্রশ্ন: আত্মহত্যা করা আমার উচিত নয় কেন?

উত্তর:
যারা আত্মহত্যা করে তারা তাদের জীবন শেষ করে দেবার চিন্তা করে; তাদের কথা শুনলে আমাদের হৃদয়ে কষ্ট হয়। এখন আপনি যদি এরকম কেউ হয়ে থাকেন, তাহলে আপনার মুখ দিয়ে অনেক হতাশা ও নিরাশা ভরা অনুভূতির কথা আবেগের সাথে বের হতে পারে। মনে হতে পারে আপনি একটা গভীর গর্তের মধ্যে পড়ে গেছেন, আপনার ধারণা- এখান থেকে বের হয়ে আসা সম্ভব নয়। আপনার অবস্থা কেউই দেখছে না, বুঝতেও পারছে না। এ জীবনে বেঁচে থাকার কোন মানেই হয় না ... অথবা, বেঁচে থেকে কি লাভ?

আপনি যদি এখন কিছু সময় নিয়ে বিবেচনা করেন আপনার জীবনে ঈশ্বর সত্যিই কেমন, তাহলে তিনি প্রমাণ করে দেবেন যে, তিনি সত্যিই কত মহান, “ঈশ্বরের কাছে অসম্ভব বলে কোন কিছুই নেই” (লূক ১:৩৭)। আপনার জীবনে রয়েছে অনেক আঘাতের দাগ, যার ফলে আপনি নিজেকে প্রত্যাখ্যাত এবং একাকী ভাবেন। এসবের কারণে নিজের প্রতি অসহায় ভাব, রাগ, তিক্ততা, প্রতিহিংসা, অথবা অস্বস্তিকর ভয় আপনার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্কগুলো ঘিরে সমস্যার সৃষ্টি করে রেখেছে।

কেন আত্মহত্যা করা আপনার উচিত নয়? প্রিয় বন্ধু, যত খারাপ অভিজ্ঞতাই আপনার জীবনে থাকুক না কেন, একজন প্রেমিক ঈশ্বর আছেন যিনি আপনাকে এই হতাশাপূর্ণ জীবন থেকে মুক্ত করে তাঁর চমৎকার আলোর পথে পরিচালনা করতে অপেক্ষা করছেন। তিনি সত্যিই আপনার জীবনে আশা। তাঁর নাম হচ্ছে যীশু।

যীশু হচ্ছেন ঈশ্বরের নিষ্পাপ পুত্র, যিনি আপনার প্রত্যাখ্যাত ও অবমাননাকর সময়ে নিজের পরিচয় দেন। যিশাইয় ৫৩:২-৬ পদে নবী যিশাইয় তাঁকে একজন মানুষ হিসাবে বর্ণনা করেছেন, কারণ সকলে তাঁকে “ঘৃণা ও অগ্রাহ্য করেছে”। তাঁর জীবন ছিল সম্পূর্ণ কষ্ট ও যন্ত্রণায় ভরা। কিন্তু যে কষ্ট তিনি ভোগ করেছেন, তা তো তাঁর নিজের না; সেগুলো সবই আমাদের কষ্ট ও যন্ত্রণা। আমাদের পাপের জন্য তিনি বিদ্ধ হয়েছেন, আহত হয়েছেন এবং চূর্ণ হয়েছেন। কারণ তাঁর কষ্টভোগ করার জন্যই আমরা মুক্তি পেয়েছি এবং নির্দোষ হয়েছি।

বন্ধু, যীশু খ্রীষ্ট এই সব কষ্ট-যন্ত্রণা সহ্য করেছেন যেন আপনার সব পাপের ক্ষমা হয়। আপনি যতরকমের পাপের বোঝা বহন করেন না কেন, আপনি যদি নত হয়ে তাঁকে আপনার উদ্ধারকর্তা বলে গ্রহণ করেন তাহলে জানবেন যে তিনি আপনাকে ক্ষমা করবেন। “তোমার বিপদের দিনে তুমি আমাকে ডেকো; আমি তোমাকে উদ্ধার করব ...” (গীতসংহিতা ৫০:১৫)। আপনার এমন কিছু খারাপ কাজ নাই যা যীশু ক্ষমা করতে পারেন না। তাঁর মনোনীত দাসেরা খুনের মত (মোশি), ব্যভিচারের মত (দায়ূদ) এবং দৈহিক ও মানসিক অত্যাচারের মত (পৌল) জঘন্য কাজ করেছে; তবুও তারা সবাই ক্ষমা পেয়েছেন এবং প্রভুতে প্রাচুর্যপূর্ণ নতুন জীবন লাভ করেছেন। “যদি কেউ খ্রীষ্টের সংগে যুক্ত হয়ে থাকে তবে সে নতুনভাবে সৃষ্ট হল। তার পুরানো সব কিছু মুছে গিয়ে সব নতুন হয়ে উঠেছে” (২ করিন্থীয় ৫:১৭)।

কেন আত্মহত্যা করা আপনার উচিত নয়? বন্ধু, ঈশ্বর ‘ভাংগা’ সম্পর্ক জোড়া দিতে প্রস্তুত আছেন, বিশেষত এখনকার এই জীবন- যা আপনি আত্মহত্যা করেই শেষ করতে চান। যিশাইয় ৬১:১-৩ পদে নবী যিশাইয় বলেছেন, “প্রভু সদাপ্রভুর আত্মা আমার উপর আছেন, কারণ তিনিই আমাকে নিযুক্ত করেছেন যেন আমি গরীবদের কাছে সুখবর প্রচার করি। তিনি আমাকে পাঠিয়েছেন যাতে আমি লোকদের ভাংগা মন জোড়া দিতে পারি এবং বন্দীদের কাছে স্বাধীনতা আর কয়েদীদের কাছে মুক্তি ঘোষণা করতে পারি; যাতে আমি সদাপ্রভুর দয়া দেখাবার সময়ের কথা আর আমাদের ঈশ্বরের প্রতিশোধের দিনের কথা ঘোষণা করতে পারি এবং যারা শোক করছে তাদের সান্ত্বনা দিতে পারি; যাতে সিয়োনে যারা শোক করছে তাদের মাথার উপর আমি ছাইয়ের বদলে সৌন্দর্যের মুকুট দিতে পারি; যাতে আমি শোকের বদলে আনন্দের তেল আর হতাশার বদলে প্রশংসার পোশাক দিতে পারি। তাদের বলা হবে সততার এলোন গাছ; সদাপ্রভু তা লাগিয়েছেন যেন তাদের মধ্য দিয়ে তাঁর গৌরব প্রকাশ পায়।”

আপনার জীবনে নতুন করে কাজ শুরু করার জন্য যীশুকে বিশ্বাস করুন, তাঁর কাছে আসুন এবং আপনার আনন্দ ও মূল্যবোধ তাঁকে ফিরিয়ে আনতে দিন। তিনি আপনার হারিয়ে যাওয়া আনন্দ পুনরায় ফিরিয়ে দিয়ে এবং আপনাকে পড়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করে নতুন আত্মা দিতে প্রতিজ্ঞা করেছেন। আপনার ভাংগা হৃদয় তাঁর কাছে খুবই দামী: “তোমার দেওয়া উদ্ধারের আনন্দ আমাকে আবার দাও;” “ভাংগাচোরা অন্তরই ঈশ্বরের গ্রহণযোগ্য উৎসর্গ; হে ঈশ্বর, নত এবং নম্র মনকে তুমি তুচ্ছ করবে না” (গীতসংহিতা ৫১:১২ক ও ১৫-১৭)।

আপনি কি প্রভুকে আপনার উদ্ধারকর্তা ও পালক বলে গ্রহণ করবেন? তিনি একেক দিন একেক সময়ে, তাঁর বাক্য- পবিত্র বাইবেলের মাধ্যমে আপনার চিন্তা-ভাবনাগুলোকে প্রতিটি ধাপে পরিচালনা করবেন। “আমি সদাপ্রভু তোমাকে জ্ঞান দেব আর যে পথে যেতে হবে তা দেখিয়ে দেব; তোমাকে চোখে চোখে রেখে আমি নির্দেশ দেব” (গীতসংহিতা ৩২:৮)। “যুগের পর যুগ ধরে তিনিই তাদের নিরাপত্তা, উদ্ধার, জ্ঞান ও বুঝবার শক্তির ভান্ডার হয়ে আসছেন। সদাপ্রভুর প্রতি ভক্তিপূর্ণ ভয় হল তাদের ধন” (যিশাইয় ৩৩:৬)। খ্রীষ্টে থাকলেও আপনার জীবনে কষ্ট-যন্ত্রণা থাকবে, কিন্তু এখন আপনার জীবনে থাকবে আশা। তিনি আপনার ‘একজন বন্ধু হয়ে ভাইয়ের চেয়েও ঘনিষ্ঠ’ থাকবেন (হিতোপদেশ ১৮:২৪)। আপনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার সময়ে প্রভু যীশুর অনুগ্রহ আপনার সাথে থাকুক।

আপনি যদি যীশু খ্রীষ্টকে আপনার উদ্ধারকর্তা হিসাবে বিশ্বাসে গ্রহণ করতে ইচ্ছুক হন, তাহলে এই কথাগুলো মনে মনে ঈশ্বরের কাছে বলুন: ‘ঈশ্বর, আপনাকে আমার জীবনে দরকার। দয়া করে আমার সব অপরাধগুলো আপনি ক্ষমা করুন। আমি যীশু খ্রীষ্টকে বিশ্বাস করি এবং তাঁকে আমার উদ্ধারকর্তা বলেও বিশ্বাস করি। দয়া করে আমাকে শুচি করুন, আরোগ্য দান করুন এবং আমার জীবনে আনন্দ ফিরিয়ে দিন। আমার বদলে যীশুর মৃত্যুবরণ করার জন্য এবং আমার প্রতি আপনার ভালবাসার জন্য ধন্যবাদ।’

এগুলো পড়ে আপনি কি খ্রীষ্টের পক্ষে কোন সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছেন? যদি নিয়ে থাকেন, তাহলে, ‘আমি আজকে খ্রীষ্টকে গ্রহণ করেছি’ লেখা নীচের বোতামে টিক চিহ্ন দিন।



বাংলা হোম পেজে ফিরে যান



আত্মহত্যা করা আমার উচিত নয় কেন?