আমার জন্য সঠিক ধর্ম কি?



প্রশ্ন: আমার জন্য সঠিক ধর্ম কি?

উত্তর:
ফার্স্ট ফুডের রেস্তোরাগুলো আমরা ঠিক যেভাবে চাই সেভাবেই আমাদের খাবার অর্ডার দিতে প্রলুদ্ধ করে। কিছু কিছু কফি সপ আছে যারা গর্ব করে বলে যে, তাদের কাছে একশোরও বেশী স্বাদের বিভিন্ন কফি আছে। এমন কি বাড়ী বা গাড়ী কিনতেও আমরা এমনটা খুঁজি, যেখানে আমাদের চাহিদা মত সবরকম সুযোগ-সুবিধা আছে। আমরা এখন আর চকোলেট, ভ্যানিলা বা স্ট্রবেরির জগতে বাস করি না। রাজকীয় পছন্দ! আপনার ব্যক্তিগত পছন্দ মত এবং প্রয়োজন মত যে কোন কিছুই আপনি পেতে পারেন।

তাহলে কোন একটা ধর্ম আপনার জন্য কেমন করে সঠিক হতে পারে? এমন একটা ধর্ম হলে কেমন হয় যা দোষ মুক্ত, কোন কিছু দাবী করে না এবং যা বিভিন্ন রকমের ‘এটা করতে হবে’, ‘ওটা করা যাবে না’, ইত্যাদি বিরক্তিকর ও বিভ্রান্তকারী হবে না। আমি যেভাবে বলছি, সেরকম তো আছে। কিন্তু ধর্ম কি এমন কিছু, যা পছন্দসই স্বাদে ভরা আইসক্রিমের মতই পছন্দ করতে হবে?

অনেক প্রতিদ্বন্দী আছেন যারা আমাদের মনোযোগ আকর্ষণ করে থাকেন। সেখানে মুহম্মদ অথবা কনফুসিয়াস, বুদ্ধ অথবা চালর্স তাজে রাসেল, অথবা যোষেফ স্মিথ- তাদের সবার উপরে কেন একজন অবশ্যই যীশুকে বিবেচনা করবে? তাদের সব পথ কি মূলত স্বর্গের দিকে নিয়ে যায় না? সব ধর্মই কি মূলত এক নয়? তবে সত্যি এটাই যে, সব ধর্মই স্বর্গের পথে আমাদের পরিচালিত করে না; যেমন করে সব রাস্তা ঢাকার দিকে নিয়ে যায় না।

একমাত্র যীশুই ঈশ্বরের ক্ষমতায় কথা বলেছেন, কারণ একমাত্র তিনিই মৃত্যুকে জয় করেছেন। মুহম্মদ, কনফুসিয়াস এবং অন্য সকলেরই ক্ষয় হয়ে যাওয়া দেহ আজ পর্যন্ত তাদের কবরে রয়েছে। কিন্তু যীশু, রোমীয়দের নিষ্ঠুর ক্রুশে মৃত্যুবরণ করে তিন দিন কবরে থাকার পরে তাঁর নিজের শক্তিতে হেঁটে বের হয়ে এসেছেন। মৃত্যুর উপরে বিজয়ী যে কেউই আমাদের মনোযোগ আকর্ষণ করতে পারেন। মৃত্যুর উপরে বিজয়ী যে কেউই মনোযোগ কেড়ে নিতে পারেন।

যীশুর পুনরুত্থানের সমর্থনে যে প্রমাণ তা বিস্ময়কর। প্রথমত, খ্রীষ্টের পুনরুত্থানের পাঁচশোরও বেশী চোখে দেখা সাক্ষী ছিল! অনেক চোখে দেখা সাক্ষী। পাঁচশো লোকের কন্ঠকে চেপে রাখা যায় না। তারপর রয়েছে শূন্য কবরের বিষয়। যীশুর শত্রুরা অতি সহজেই তাঁর ক্ষয় হয়ে যাওয়া মৃতদেহ দেখিয়ে তাঁর পুনরুত্থানের সব আলোচনা বন্ধ করে দিতে পারত, কিন্তু দেখাবার জন্য তাদের কোন মৃতদেহ ছিল না! কবর ছিল শূন্য! তাঁর শিষ্যরা কি দেহটা চুরি করতে পারত? কষ্টকর। কারণ এই সম্ভাবনাকে ঠেকাতেই যীশুর কবর সশস্ত্র সৈন্যদের দিয়ে জোরালোভাবে পাহারা দেওয়া হয়েছিল। তাছাড়া, তাঁর গ্রেফতার ও ক্রুশে মৃত্যুর ঘটনায় তাঁর ঘনিষ্ঠ অনুসারীরা ভয়ে পালিয়েছিল এবং এই নীচু শ্রেণির ভীত সন্ত্রস্ত জেলেদের পক্ষে একদল পেশাদার সৈন্যের সাথে টক্কর দেওয়া একেবারেই অসম্ভব ছিল। অথবা, সবাই একজন প্রবঞ্চকের জন্য জীবন দিয়ে শহীদ হতে পারত- যেভাবে পরবর্তীতে তারা অনেকেই করেছিল। তবে, যীশুর পুনরুত্থানের এই ঘটনাকে এত সহজে ব্যাখ্যা করা যায় না!

আবার, যদি কেউ মৃত্যুর উপরে ক্ষমতা রাখে, তাঁর কথা শোনা উচিত। যীশুই তো মৃত্যুর উপরে তাঁর ক্ষমতা প্রমাণ করেছেন; তাই, তিনি যা বলেন তা আমাদের শোনা দরকার। যীশুর দাবী, পরিত্রাণ বা উদ্ধার পাবার তিনিই একমাত্র পথ (যোহন ১৪:৬)। তিনি একটি পথ নয়; তিনি অনেকগুলো পথের একটি নয়। যীশুই পথ।

এই একই যীশু আবার বলেছেন, “তোমরা যারা ক্লান্ত ও বোঝা বয়ে বেড়াচ্ছ, তোমরা সবাই আমার কাছে এস; আমি তোমাদের বিশ্রাম দেব” (মথি ১১:২৮)। এই পৃথিবী বড়ই কঠিন এবং জীবনও কষ্টকর। আমরা অনেকেই বেশ ভালভাবেই নিষ্ঠুর, থেতলে পড়া এবং জীবন যুদ্ধে ক্ষতবিক্ষত- স্বীকার করেন কি? তাহলে আপনি কি চান? শুধু ধর্মকে চান, না জীবনকে পুনরুদ্ধার করতে চান? একজন জীবিত উদ্ধারকর্তা অথবা অনেক মৃত ‘নবীদের’ মধ্যে কাউকে চান? এক অর্থবহ সম্পর্ক চান, না ফাঁকা আনুষ্ঠানিকতা চান? যীশু একটি পছন্দ নয়- একমাত্র পছন্দ!

আপনি যদি আপনার পাপের ক্ষমা খোঁজেন, তাহলে যীশুই সঠিক ‘ধর্ম’ (প্রেরিত ১০:৪৩)। আপনি যদি ঈশ্বরের সাথে এক অথর্বহ জীবন কাটাতে চান, তাহলে যীশই সঠিক ‘ধর্ম’ (যোহন ১০:১০)। আপনি যদি স্বর্গের অনন্তকালীন বাসস্থানের খোঁজ করে থাকেন, তাহলে যীশই সঠিক ‘ধর্ম’ (যোহন ৩:১৬)। উদ্ধারকর্তা হিসাবে যীশু খ্রীষ্টের উপরে আপনার বিশ্বাস স্থাপন করুন; আপনি আক্ষেপ করবেন না! আপনার পাপের ক্ষমার জন্য তাঁর উপরে নির্ভর করুন; আপনি নিরাশ হবেন না।

আপনি যদি ঈশ্বরের সাথে ‌সঠিক সম্পর্ক রাখতে চান, তাহলে এখানে একটা প্রার্থনার উদাহরণ দেওয়া হল। তবে মনে রাখবেন, এই প্রার্থনা বললে বা অন্য কোন প্রার্থনা বললেই আপনি উদ্ধার পাবেন না। শুধুমাত্র খ্রীষ্টে বিশ্বাস করলেই আপনি পাপ থেকে উদ্ধার পেতে পারেন। এই প্রার্থনাটি ঈশ্বরের কাছে আপনার বিশ্বাসকে প্রকাশ করার এবং আপনাকে পরিত্রাণ বা উদ্ধার করেছেন বলে তাঁকে ধন্যবাদ জানানোর একটা সোজা পথ। ‘ঈশ্বর, আমি জানি আমি আপনার বিরুদ্ধে পাপ করেছি; সেজন্য শাস্তি আমার পাওনা। কিন্তু যীশু খ্রীষ্ট আমার পাওনা শাস্তি নিজেই নিয়েছেন যেন তাঁকে বিশ্বাস করে আমি ক্ষমা পেতে পারি। পরিত্রাণ বা উদ্ধারের জন্য আমি আপনার প্রতি বিশ্বাস রাখি। আপনার অতুলনীয় অনুগ্রহ ও ক্ষমার জন্য এবং অনন্ত জীবন দানের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ! আমেন!’

এগুলো পড়ে আপনি কি খ্রীষ্টের পক্ষে কোন সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছেন? যদি নিয়ে থাকেন, তাহলে, ‘আমি আজকে খ্রীষ্টকে গ্রহণ করেছি’ লেখা নীচের বোতামে টিক চিহ্ন দিন।



বাংলা হোম পেজে ফিরে যান



আমার জন্য সঠিক ধর্ম কি?