পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে কথা বলা মানে কি?



প্রশ্ন: পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে কথা বলা মানে কি?

উত্তর:
“পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে কথা বলা” সম্পর্কিত ধারণা মার্ক ৩:২২-৩০ এবং মথি ১২:২২-৩২ পদে উল্লেখ করা হয়েছে। বিরুদ্ধে কথা বলা বা বিপক্ষে কথা বলা মূলত “প্রকাশ্য বিরোধীতা” করা বুঝায়। আবার, এই কথা দিয়েই ঈশ্বরের বিরুদ্ধে অভিশাপ উচ্চারণ করা, অথবা ইচ্ছাপূর্বক ঈশ্বরের সম্পর্কিত বিষয়সমূহ তুচ্ছ বা হেয় জ্ঞান করাকে পাপ বলেও ধরা যেতে পারে। একদিকে তা ঈশ্বরের বিপক্ষে মন্দতাকে প্রশ্রয় দেওয়া, অথবা তাঁর পাওনা গুণাগুনকে হেয় করা বলা যেতে পারে। এখানে যে কথা নির্দিষ্ট করে বলা হয়েছে, তা হচ্ছে- “পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে কথা বলা”, যা মথি ১২:৩১ পদে লেখা হয়েছে। মথি ১২:৩১-৩২ পদে পবিত্র আত্মার শক্তিতে যীশুর কৃত অখন্ডনীয় আশ্চর্য কাজের সাক্ষী হয়েও দাবী করে বলা হয়েছে, যীশু মন্দ আত্মাদের রাজা “বেলসবূলের” দ্বারা মন্দ আত্মা ছাড়ান (মথি ১২:২৪ পদ দ্রষ্টব্য)। মার্ক ৩:৩০ পদ লক্ষ্য করলে দেখা যাবে যে, এখানে যীশু খুবই নির্দিষ্ট করে “পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে তাদের ভন্ডামীর” কথা তুলে ধরেছেন।

এই ভন্ডামী একজনের সম্বন্ধে বলা যায়, যে নাকি যীশুকে পবিত্র আত্মায় পূর্ণ না বলে মন্দ আত্মায় পূর্ণ বলেছে। এই কারণে, এই নির্দিষ্ট মিথ্যাচারের ঘটনার কথা উল্লেখ করে পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে কথা বলা আজকের দিনে নকল করা সম্ভব নয়। যীশু এখন আর এই পৃথিবীতে নাই- তিনি ঈশ্বরের ডান পাশে বসে আছেন। এখন আর কেউই যীশু খ্রীষ্টের আশ্চর্য কাজের সাক্ষী হয়ে বলতে পারে না যে, তিনি পবিত্র আত্মায় পূর্ণ না হয়ে শয়তানের আত্মায় পূর্ণ হয়েই আশ্চর্য কাজ করেন। তারই সবচেয়ে ঘনিষ্ট উদাহরণ হচ্ছে, যখন একজন লোক শয়তানের হাত থেকে মুক্তি পেয়ে পবিত্র আত্মার দ্বারা আশ্চর্যভাবে পরিবর্তিত হয়।

আজকের দিনেও পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে কথা বলা বা বার বার অবিশ্বাস করা তখনকার দিনের মতই ক্ষমার অযোগ্য পাপ। যে ব্যক্তি অবিশ্বাসী হিসাবে মৃত্যুবরণ করবে তার কোন ক্ষমা হবে না। যীশু খ্রীষ্টকে বিশ্বাস করতে পবিত্র আত্মার বার বার বলা কথা না শুনলে তা ক্ষমার অযোগ্য ও পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে চলা বুঝায়। যোহন ৩:১৬ পদে কি বলেছে, তা স্মরণ করা দরকার: “ঈশ্বর মানুষকে এত ভালবাসলেন যে, তাঁর একমাত্র পুত্রকে তিনি দান করলেন, যেন যে কেউ সেই পুত্রের উপরে বিশ্বাস করে সে বিনষ্ট না হয় কিন্তু অনন্ত জীবন পায়।” এই একই অধ্যায়ে আবার বলা হয়েছে, “যে কেউ পুত্রের উপরে বিশ্বাস করে সে তখনই অনন্ত জীবন পায়, কিন্তু যে পুত্রকে অমান্য করে সে সেই জীবন কখনও পাবে না, বরং ঈশ্বরের ক্রোধ তার উপরে থাকবে” (যোহন ৩:৩৬ পদ)। একটা মাত্র শর্ত এখানে কার্যকর, তা হচ্ছে- যার মধ্যে কোন ক্ষমা নাই, তারা- “যারা তাঁকে বিশ্বাস করে” সেই দলে নেই, কারণ তারা তো ঈশ্বরের “পুত্রকে প্রত্যাখ্যান” করেছে।



বাংলা হোম পেজে ফিরে যান



পবিত্র আত্মার বিরুদ্ধে কথা বলা মানে কি?