শেষকাল সম্পর্কিত ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী কি কি ঘটতে যাচ্ছে?



প্রশ্ন: শেষকাল সম্পর্কিত ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী কি কি ঘটতে যাচ্ছে?

উত্তর:
বাইবেলে এমন অনেক ঘটনা বা বিষয় আছে যেগুলো শেষকাল বা শেষ সময় সম্পর্কে বলে। এমনকি বাইবেলের প্রতিটি পুস্তকের মধ্যে শেষকাল সম্বন্ধে ভবিষ্যদ্বাণীর উল্লেখ আছে। এই সমস্ত ভবিষ্যদ্বাণী সংগ্রহ করে এক জায়গায় একত্রিত করা বেশ কষ্টকর বিষয় হতে পারে। শেষকালে যা যা ঘটবে সে সম্বন্ধে বাইবেলে যে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে তার একটি সংক্ষিপ্ত সারাংশ নিচে দেওয়া হলো।

যীশু খ্রীষ্ট সমস্ত নতুন জন্ম প্রাপ্ত বিশ্বাসীদের এই পৃথিবী থেকে সরিয়ে নেবেন যা র্যাপচার (আকাশে তুলে নেওয়া) নামে পরিচিত (১থিষলনীকীয় ৪:১৩-১৬; ১করিন্থীয় ১৫:৫১-৫৪ পদ)। যে সমস্ত বিশ্বাসীরা এই পৃথিবীতে থাকাকালীন সময়ে তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব বা পরিচর্যা কাজ বিশ্বস্তভাবে করেছেন তারা খ্রীষ্টের বিচারাসনের সামনে যখন উপস্থিত হবেন তখন তারা পুরস্কৃত হবেন এবং যারা বিশ্বস্তভাবে পরিচর্যা কাজ করেননি এবং ঈশ্বরের অবাধ্য হয়েছেন তারা তাদের পুরস্কার হারাবেন, এই পুরস্কার কিন্তু অনন্ত জীবন নয় (১করিন্থীয় ৩:১২-১৫; ২করিন্থীয় ৫:১০ পদ)।

ভ্রান্ত খ্রীষ্ট (খ্রীষ্টারী) যাকে পশু নামে আখ্যায়িত করা হয়েছে সে অত্যন্ত ক্ষমতার সাথে আসবে এবং ইস্রায়েল জাতির সাথে সাত বছরের জন্য একটা সন্ধি বা চুক্তি করবে (দানিয়েল ৯:২৭ পদ)। এই সাত বছরের সময়কাল “মহাকষ্টের বছর” নামে পরিচিত। এই সময় ভীষণ যুদ্ধ, দুর্ভিক্ষ, মহামারী এবং নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগ দেখা যাবে। ঈশ্বর তাঁর প্রচন্ড কোধ পাপ, মন্দতা এবং সমস্ত খারাপ বিষয়ের উপর ঢেলে দেবেন। এই মহাকষ্টের বছরগুলোর মধ্যে জগতের ভবিষ্যৎ পরিণতি বিষয়ে ঈশ্বরলব্ধ জ্ঞানের ধ্বজাবাহী চার জন অশ্বারোহী এবং সাতটি সীলমোহর, সাতটি বাদ্যযন্ত্র/তূরী এবং বিচার-বাটি দেখা যাবে।

মহাকষ্টের সাত বছরের মাঝামাঝি বা অর্ধেক সময়কালে খ্রীষ্টারী বা ভ্রান্ত খ্রীষ্ট (নবী) ইস্রায়েল জাতির সাথে করা শন্তি চুক্তি বা সন্ধি ভেঙ্গে ফেলবে ফেলবে এবং তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করবে। সে নিজেকে খ্রীষ্ট বা ঈশ্বর বলে দাবী করবে এবং মানুষের মধ্যে নিজের এমন একটা ভাবমূর্তি তৈরী করবে যেন যিরূশালেম মন্দিরে তার উপাসনা করা হয় (দানিয়েল ৯:২৭; ২থিষলনীকীয় ২:৩-১০ পদ)। এ সময় যিরূশালেম মন্দির আবার তৈরী করা হবে। সাত বছরের শেষের অর্ধেক সময়কাল “মহাকষ্টের সময়” (প্রকাশিত বাক্য ৭:১৪ পদ) এবং “যাকোবের কষ্টের সময়” (যিরমিয় ৩০:৭ পদ) নামে পরিচিত।

মহাকষ্টের সাত বছরের শেষে খ্রীষ্টারী চূড়ান্তভাবে যিরূশালেম আক্রমণ করবে যা ‘হরমহিদ্দোনের যুদ্ধ’ নামে পরিচিত। এই সময় প্রভু যীশু খ্রীষ্ট ফিরে আসবেন এবং খ্রীষ্টারী ও তার সমস্ত সৈন্যদলকে পরাজিত করে তাদের জ্বলন্ত আগুনের হ্রদে ফেলে দেবেন (দানিয়েল ১৯:১১-২১ পদ)। পরে যীশু খ্রীষ্ট শয়তানকে এক হাজার বছরের জন্য ‘অ্যাবিসে’ অর্থাৎ ‘অতল গর্তে’ বন্দি করে রাখবেন এবং এই পৃথিবীতে তাঁর হাজার বছরের রাজত্ব শুরু করবেন (প্রকাশিত বাক্য ২০:১-৬ পদ)।

হাজার বছর পরে শয়তানকে ছেড়ে দেওয়া হবে। সে আবার পরাজিত হবে এবং তাকে পুনরায় অনন্তকালের জন্য জ্বলন্ত আগুনের হ্রদে ফেলে দেওয়া হবে (প্রকাশিত বাক্য ২০:৭-১০ পদ)। এরপর যীশু খ্রীষ্ট একটা বড় সাদা সিংহাসনে বসে সমস্ত অবিশ্বাসীদের বিচার করবেন (প্রকাশিত বাক্য ২০:১০-১৫ পদ) এবং তাদের জ্বলন্ত আগুনের হ্রদে ফেলে দেওয়া হবে। পরবর্তীতে বিশ্বাসীরা যেন অনন্তকাল ধরে শান্তিতে বসবাস করতে পারেন তার জন্য খ্রীষ্ট নতুন মহাকাশ, নতুন পৃথিবী এবং নতুন যিরূশালেম তৈরী করবেন। এখানে কোন ধরনের পাপ, দুঃখকষ্ট কিংবা মৃত্যু থাকবে না (প্রকাশিত বাক্য ২১:২১-২২ অধ্যায়)।



বাংলা হোম পেজে ফিরে যান



শেষকাল সম্পর্কিত ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী কি কি ঘটতে যাচ্ছে?