আদিপুস্তক ৬:১-৪ পদ অনুযায়ী ঈশ্বরের পুত্র এবং মনুষ্য কন্যারা কারা ছিল?



প্রশ্ন: আদিপুস্তক ৬:১-৪ পদ অনুযায়ী ঈশ্বরের পুত্র এবং মনুষ্য কন্যারা কারা ছিল?

উত্তর:
আদিপুস্তক ৬:১-৪ পদে ঈশ্বরের পুত্র এবং মনুষ্য কন্যাদের বিষয়ে আলোকপাত করা হয়েছে। এখানে কতিপয় প্রস্তাব বা পরামর্শ রাখা হয়েছে যে, ঈশ্বরের পুত্রেরা কারা ছিল এবং কেনই বা তাদের সাথে মনুষ্য কন্যাদের মিলনের ফলে একটি নামকরা ও শক্তিশালী জাতির উদ্ভব হয়েছিল [নামকরা ও শক্তিশালী জাতি বুঝাতে এখানে (নেপিলী- Nephilim) শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে।]

ঈশ্বরের পুত্রদের চিহ্নিত করতে যে তিনটি প্রাথমিক দৃষ্টিভঙ্গি লক্ষ্য করা যায় সেগুলো হলোঃ ১) তারা ছিল পতিত স্বর্গদূত, ২) তারা ছিল ক্ষমতাশালী শাসনকর্তা এবং ৩) তারা ছিল শেথের প্রতিমাজূজক বংশদর যারা কয়িনের দুষ্ট বংশধরদের সাথে পারস্পরিক বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিল। প্রথম তত্ত্বটির উপর গুরুত্বারোপ করে প্রকৃত এই সত্য জানা যায় যে, পুরাতন নিয়মে “ঈশ্বরের পুত্রেরা” বলতে সব সময় স্বর্গদূতদের কথাই বুঝানো হয়েছে (ইয়োব ১:৬; ২:১; ৩৮:৭)। মথি ২২:৩০ পদের মধ্যে স্বর্গদূতদের বিষয়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং জটিল একটি বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। আর তা হলো- স্বর্গদূতেরা কখনও বিয়ে করে না। পবিত্র বাইবেল আমাদের এটা বিশ্বাস করার মত কোন যুক্তি প্রদান করে না যে, স্বর্গদূতেরা পুরুষ, স্ত্রী না কি অন্য কিছু, অথবা তারা বংশ উৎপাদন করতে সমর্থ কি না। অবশ্য অন্য দু’টি চিন্তাধারা বা দৃষ্টিভঙ্গিতে এই সমস্যা নেই।

দৃষ্টিভঙ্গি ২ ও ৩-এর দুর্বলতা এই যে, যেখানে সাধারণ পুরুষরা সাধারণ মহিলাদের বিয়ে করছে সেখানে কিভাবে সন্তানেরা ‘দৈত্য’ বা ‘দানব’ আকৃতির অথবা “পুরানো দিনের নাম-করা শক্তিশালী লোক” হতে পারে? তদুপরি ঈশ্বর পৃথিবীর উপর বন্যা আনার সিদ্ধান্ত কেন নিয়েছিলেন (আদিপুস্তক ৬:৫-৭ পদ) যখন তিনি শেথের শক্তিশালী বা বলিষ্ঠ পুরুষদের কয়িনের সাধারণ কন্যাদের বিয়ে করতে কখনই নিষেধ করেন নি? আদিপুস্তক ৬:৫-৭ পদের মধ্যে যে বিচারের কথা বলা হয়েছে তার সাথে আদিপুস্তক ৬:১-৪ পদে উল্লেখিত বিচারের সাথে একটি যোগসূত্র রয়েছে। এ ধরনের কঠিন বিচারের মধ্যে শুধুমাত্র পতিত স্বর্গদূতের সাথে মনুষ্য কন্যাদের বিকৃত বিবাহের বিচার করার বিষয়টি লক্ষ্য করা যায়।

পূর্বে যেভাবে উল্লেখ করা হয়েছিল যে, প্রথম দৃষ্টিভঙ্গির দুর্বলতা মথি ২২:৩০ পদে ঘোষণা করা হয়েছে, “মৃতেরা জীবিত হয়ে উঠবার পরে বিয়ে করবে না এবং তাদের বিয়ে দেওয়াও হবে না; তারা স্বর্গদূতদের মত হবে।” সুতরাং দেখা যাচ্ছে যে, এই পাঠ্যাংশটি একথা বলে না যে, “স্বর্গদূতেরা বিয়ে করতে অক্ষম”, বরং এটি এই অর্থ প্রকাশ করে যে, স্বর্গদূতেরা বিয়ে করে না। মথি ২২:৩০ পদের দ্বিতীয় অংশে ‘স্বর্গদূতদের’ প্রতি ইঙ্গিত করা হয়েছে। এখানে পতিত দূতদের কথা বলা হচ্ছে না যারা ঈশ্বরের সৃষ্টির আদেশকে অমান্য করে এবং তাঁর পরিকল্পনা নষ্ট করার জন্য সক্রিয়ভাবে নানা পথের খোঁজ করে থাকে। সত্য এই যে, ঈশ্বরের পবিত্র স্বর্গদূতেরা বিয়ে করে না কিংবা কোন ধরনের যৌন সম্পর্কেও নিজেদের জড়ায় না। এর অর্থ এই নয় যে, এটি শয়তান এবং তার সাথী মন্দ আত্মাদের ক্ষেত্রেও সত্য।

দৃষ্টিভঙ্গি-১ সবচেয়ে ভালো এবং সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে। হ্যাঁ, এটি বলার মত একটি মজাদার পরস্পবিরোধী উক্তি যে, স্বর্গদূতেরা লিঙ্গহীন (না পুরুষ, না মহিলা) বা যৌন অনুভূতিহীন, আবার পরেই বলা হচ্ছে, ‘ঈশ্বরের পুত্রেরা’ ছিলেন পতিত স্বর্গদূত যারা মনুষ্য কন/্যাদের সাথে মিলিত হয়ে সন্তান উৎপাদন করেছিলেন। অবশ্য, যেহেতু স্বর্গদূতেরা আধ্যাত্মিক সত্তা (ইব্রীয় ১:১৪ পদ) সে কারণে তারা মানুষের দেহ ধারণ করে যে কোন জায়গায় উপস্থিত হতে পারেন (মার্ক ১৬:৫ পদ)। সদোম ও ঘমোরার লোকেরা লোটের বাড়িতে অবস্থানকারী দু’জন দূতের সাথে যৌন কাজ করতে চেয়েছিল (আদিপুস্তক ১৯:১-৫ পদ)। আপাতদৃষ্টিতে এটি ন্যায়সঙ্গত যে, স্বর্গদূতেরা মানুষের মত দেহ ধারণ করতে সক্ষম। এমনকি, তারা যৌন কাজ ক্রিয়া করতে এবং সম্ভবত সন্তান উৎপাদন করতেও সক্ষম। প্রশ্ন হলো, তবে কেন পতিত স্বর্গদূতেরা এ ধরনের কাজগুলো খুব বেশী করে না? দেখতে পাওয়া যে, এ ধরনের খারাপ কাজ যে সমস্ত পতিত স্বর্গদূতেরা করেছিল ঈশ্বর তাদের বন্দি করে রেখেছেন। সেই কারণে অন্য পতিত স্বর্গদূতেরা ঐ একই ধরনের কাজ করতে পারবে না (যিহূদা ৬ পদের বর্ণনানুযায়ী)। প্রথম দিককার হিব্রু ব্যাখ্যাকারীরা এবং বিভিন্ন প্রশ্নসাপেক্ষ/সন্দেহজনক ও বিজ্ঞানকল্প লেখাগুলো এই এক্যমত্যে পৌঁছে মত প্রকাশ করে যে, আদিপুস্তক ৬:১-৪ পদের মধ্যে যাদের নির্দেশ করা হয়েছে তারা হলো “ঈশ্বরের সন্তানেরা”। এখানে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই। অবশ্য, আদিপুস্তক ৬:১-৪ পদের মধ্যে যে সব পতিত স্বর্গদূত জড়িত রয়েছে তারা যে মনুষ্য কন্যাদের সাথে মিলিত হয়েছিল তা খুবই প্রাসঙ্গিক, নিয়মসিদ্ধ এবং ইতিহাসনির্ভর একটি বিষয়ও বটে।



বাংলা হোম পেজে ফিরে যান



আদিপুস্তক ৬:১-৪ পদ অনুযায়ী ঈশ্বরের পুত্র এবং মনুষ্য কন্যারা কারা ছিল?