শয়তান কে?



প্রশ্ন: শয়তান কে?

উত্তর:
শয়তান সম্পর্কিত লোকদের ধারণা এই যে, একটি শিংওয়ালা ছোট মানুষ যে আমাদের কাঁধে বসে আছে এবং আমাদের প্রতিনিয়ত পাপ কাজ করতে বলছে। এর দ্বারা সে এটা বুঝাতে চায় যে, সে দিয়াবলের একটি প্রতিরূপ। যাহোক, পবিত্র বাইবেল আমাদের শয়তান কে এবং আমাদের জীবনে সে কিভাবে প্রভাব বিস্তার করে তার একটি সুস্পষ্ট ছবি প্রকাশ করে। শয়তানকে বাইবেলে এভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে, সে হচ্ছে স্বর্গদূত যাকে পাপ করার জন্য স্বর্গে তার যে পদমর্যাদা ছিল তা থেকে তাকে পৃথিবীতে ফেলে দেওয়া হয়েছে বেং যে এখনও পর্যন্ত তার সমস্ত শক্তি দিয়ে ঈশ্বরের উদ্দেশ্য বা অভিপ্রায়কে প্রতিহত করার জন্য সম্পূর্ণরূপে ঈশ্বরের বিরোধিতা করেই চলেছে।

শয়তানকে পবিত্র স্বর্গদূতরূপে সৃষ্টি করা হয়েছিল। যিশাইয় ১৪:১২ পদ আমাদের এই কথা বলে যে, শয়তানের আগের নাম ছিল লুসিফার। যিহিস্বেল ১৮:১২-১৪ পদে বর্ণনা করা হয়েছে যে, শয়তানকে রক্ষাকারী করূব এবং সর্বশ্রেষ্ঠ বা প্রধান দূতরূপে সৃষ্টি করা হয়েছিল। সে তার সৌন্দর্য় এবং পদমর্যাদার বিষয়ে খুবই অহংকারী হয়ে উঠল এবং ঈশ্বরের সিংহাসনের উপরে তার সিংহাসন স্থাপন করতে চাইল (যিশাইয় ১৪:১৩-১৪; যিহিস্কেল ১৮:১৫; ১তীমথিয় ৩:৬ পদ)। শয়তানের এই অহংকারী ভাবই তার পতনকে ত্বরান্বিত করেছিল। যিশাইয় ১৪:১২-১৫ পদের মধ্যে অনেকবার “আমিই”- এই শব্দটির উল্লেখ আছে। পাপের কারণে ঈশ্বর শয়তানকে স্বর্গ থেকে পৃথিবীতে ফেলে দিয়েছিলেন।

শয়তান এই জগতের শাসনকর্তা এবং আকাশের ক্ষমতাশালীদের রাজা হয়েছিল (যোহন ১২:৩১; ২করিন্থীয় ৪:৪; ইফিষীয় ২:২ পদ)। সে একজন দোষারোপকারী (প্রকাশিত বাক্য ১২:১০ পদ), সে একজন পরীক্ষক (মথি ৪:৩: ১থিষলনীকীয় ৩:৫ পদ) এবং সে একজন প্রতারক (আদিপুস্তক ৩; ২করিন্থীয় ৪:৪; প্রকাশিত বাক্য ২০:৩ পদ)। তার এই অনেক নামের অর্থ হচ্ছে “বিপক্ষকারী বা “প্রতিদ্বন্দ্বী” অথবা “যে বিরোধিতা করে”। তার অন্য আর একটি নাম হচ্ছে “দিয়াবল”- যার অর্থ “অপবাদকারী”।

যদিও তাকে (শয়তান) স্বর্গ থেকে নিচে অর্থাৎ পৃথিবীতে ফেলে দেওয়া হয়েছে তবুও সে এখনও ঈশ্বরের সিংহাসনের উপরে তার নিজের সিংহাসন স্থাপন করার চেষ্টা করেই চলেছে। সে জগতের উপাসনা পাওয়ার আশায় ঈশ্বর যা যা করেন তার সবকিছুই নকল বা জাল করে এবং ঈশ্বর-বিরোধীদের তাঁর (ঈশ্বরের) রাজ্যের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে উৎসাহ যুগিয়েই চলেছে। শয়তান হচ্ছে সমস্ত মিথ্যা, ভ্রান্ত এবং জাগতিক ধর্মের চূড়ান্ত উৎস। শয়তান ঈশ্বর এবং তাঁকে অনুসরণকারীদের বিরোধিতা করতে তার সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করার ব্যাপারে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। যাহোক, শয়তানের শেষ গন্তব্য স্থির বা মু্দ্রাঙ্ক করাই আছে। আর সেটি হচ্ছে চিরকাল ধরে দিনরাত যন্ত্রণা ভোগ করার জন্য জ্বলন্ত গন্ধকের হ্রদে নিক্ষিপ্ত হওয়া অর্থাৎ অনন্ত নরক।



বাংলা হোম পেজে ফিরে যান



শয়তান কে?